ঢাকা-১৯ আসনে আ.লীগের মনোনয়নের দৌড়; বিতর্কিত অধিকাংশ প্রার্থী


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৩, ২০২৩, ৫:০০ অপরাহ্ন / ৬৭৬
ঢাকা-১৯ আসনে আ.লীগের মনোনয়নের দৌড়; বিতর্কিত অধিকাংশ প্রার্থী

নির্বাচন এলেই শুরু মৌসুমী নেতাদের ঢাকডোল পেটানোর হিড়িক। মনোনয়নের দৌড়ে কে কার চেয়ে এগিয়ে সেই প্রতিযোগিতায় নামে সবাই। ব্যানার-ফেস্টুন-পোস্টারে ছেয়ে যায় অলিগলি। আসন্ন দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়েও শুরু হয়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের দৌড়ঝাপ।

রাজধানীর পার্শ্ববর্তী সাভার ও আশুলিয়া তথা ঢাকা-১৯ আসনে এবারও দেখা মিলেছে প্রায় হাফ ডজন মনোনয়ন প্রত্যাশীর। এরমধ্যে ক্ষমতাশীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেতে মরিয়া হয়েছে উঠেছেন তৃণমূলের অনেকে। এরই মধ্যে নৌকা প্রতীকের মনোনয়ন সংগ্রহ করেছেন আওয়ামী লীগের ৬ নেতা। তাদের মধ্যে মনোনয়নের আশায় একজন ছেড়েছেন চেয়ারম্যানের চেয়ারও।

এবারের মনোনয়নের দৌড়ে রয়েছেন, ঢাকা-১৯ আসনের আওয়ামী লীগ মনোনীত দুই বারের এমপি, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. এনামুর রহমান, ঢাকা-১৯ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য তালুকদার মোহাম্মদ তৌহিদ জং মুরাদ, সাভার উপজেলা চেয়ারম্যান ও সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মঞ্জরুল আলম রাজীব, আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মাদ সাইফুল ইসলাম, সভাপতি ফারুক হাসান তুহিন ও যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবু আহমেদ নাসিম পাভেল।

যদিও আওয়ামী লীগের মেনোনয়ন প্রত্যাশী এসব প্রার্থীদের অনেককে নিয়ে রয়েছে নানান বিতর্ক। যেমন

সাবেক সংসদ সদস্য তৌহিদ জং মুরাদ দীর্ঘদিন ধরেই মাঠের রাজনীতির বাইরে আছেন। রানা প্লাজা ধ্বসের ঘটনায় ওই মার্কেটের মালিক রানার সঙ্গে সক্ষতা নিয়ে বেশ সমালোচিত সাবেক এই সংসদ সদস্য। এক সময়ের জনপ্রীয় তরুণ এই নেতা এখন স্থানীয়দের কাছে ধুলোভরা ছবির ফ্রেমের মতো।

একই কাতারে যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবু আহমেদ নাসিম পাভেল। বিভিন্ন সময় আওয়ামী লীগের ব্যানারে মিছিল ও ত্রাণ বিতরণ করতে দেখা গেলেও তৃণমূলে খুব একটা জনপ্রীয়তা নেই পাভেলের। তারওপর যুবলীগের এই প্রেসিডিয়াম সদস্যর ছোট বোনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ডে বেশ সমালোচিত তিনি। এলাকায় বিভিন্ন অপকর্মে বেশকবার উঠে এসেছে পাভেলের নাম। তাই নৌকার মাঝির দৌড়ে শেষের দিকেই থাকছে তার নাম।

একই আসনে আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি ফারুক হাসান তুহিন পরিচিত ম্যাজিকম্যান হিসাবে। আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে তার রয়েছে বেশ সক্ষতা। উচ্চ পর্যায়ের নেতানেত্রীদের সঙ্গে রয়েছে সম্পর্ক। তাছাড়া তুহিনের পিতা সাভার পৌরসভার মেয়র হওয়ার সুবাদে তৃণমূলে পরিচিতও রয়েছে বেশ। কিন্তু প্রথম শ্রেণির পৌরসভা সাভারে ফারুক হাসান তুহিনের পিতা বর্তমান মেয়র হাজী মো. আব্দুল গণির কর্মকান্ড বেশ সমালোচিত। নাগরিক সুবিধা নিশ্চিত করা দুরের কথা নিজের পকেট ভারি করতেই ব্যাস্ত এই মেয়র। বিগত দিনে উন্নয়নের ছোয়া থেকে বঞ্চিত সাভারবাসীর বেড়েছে শুধুই দুর্ভোগ। তাছাড়া তুহিনের হঠাৎ করে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ বনে যাওয়া নিয়েও রয়েছে নানান প্রশ্ন। পকেট কমিটি দিয়ে টাকা লেনদেন, স্ত্রীর নামে বিঘায় বিঘায় জমি কেনা, নিজ নামে ইটভাটা, কোটি কোটি টাকার জমি ও অর্থ সম্পদের পাহাড় নিয়ে দুদকের জেরার মুখোমুখি হতে হয়েছে তুহিন ও তার পরিবারকে।

সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মঞ্জুরুল আলম রাজীব ছাত্র রাজনীতি থেকে শুরু করে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে রয়েছেন দীর্ঘ দিন ধরে।বার বার কারাবরণ করেছেন আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে এসে। বর্তমানে তার নির্দেশনায় চলে সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগ। ঢাকা-১৯ আসনে নৌকার মাঝি হতে এবারও সক্রিয় তিনি। যদিও এই উপজেলা চেয়ারম্যানকে নিয়ে রয়েছে নানান গুঞ্জণ। সংবাদ প্রচার করায় সাংবাদিককে হুমকি প্রদান, পেটোয়া বাহিনী দিয়ে চাঁদাবাজী, জমি দখল, নিজ এলাকায় আদালতের নির্দেশ অমান্য করে হলমার্ক গ্রুপের সম্পদ দখলেও জড়িয়েছে রাজীবের নাম। এছাড়া মুঠোফোনে এক নারীর সঙ্গে বিকৃত যৌনাচারের ভিডিও ভাইরালের পর বেশ সমালোচিত আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী এই রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব। চারিত্রিক অবখ্যয় ছাড়াও এই উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে স্বেচ্ছাচারিতার। তার ভয়ে মুখ খুলতে রাজি নন সাভার-আশুলিয়ার ক্ষমতাশিন দলের নেতাকর্মী থেকে শুরু করে স্থানীয় জনগণও। সম্প্রতি সাভারের ছাত্রলীগ নেতা আতিকের অবৈধ উপায়ে কোটি কোটি টাকার মালিক বনে যাওয়া নিয়ে সংবাদ প্রকাশে আবারও উঠেছে এসেছে রাজীবের নাম। আতিকের গডফাদার হিসেবে পরিচিত রাজিবের ছত্র ছায়ায় বেপরোয়া আতিক শুধু সল্প সময়ে পাহাড়সম সম্পদের মালিকই হননি জড়িয়েছেন অস্ত্র ব্যবসাতেও। এছাড়া রাজিবের শ্যালক রুবেলও দুলাভায়ের ক্ষমার দাপটে চুষে খাচ্ছে গোটা এলাকায়। শুধু মাত্র সাভারের ব্যাংক টাউনেই কিনেছেন বেশকটি ফ্ল্যাট ও প্লট। এছাড়াও সাভার আশুলিয়া চাঁদাবাজির টাকায় রুবেলের সম্পদের পাহাড়ের গল্প সবার মুখে মুখে। পৌরসভার ওয়ার্ড কাউন্সিলর রাজীবের মামা মানিক মোল্লার দাপটে গুটিশুটি স্থানীয়রা। সাভারের সবচেয়ে বড় বাজার নামা বাজারে একক আধিপত্ত তার। এই মানিক মোল্লার বিরুদ্ধে রয়েছে, অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে ত্রাসের রাজত্ব্য কায়েম, গোলাগুলি, বিভিন্ন রুট ও পয়েন্টে চাঁদাবাজির সিন্ডিকেট গড়ে তোলা, জমি ও বাড়ি দখল, এমনকি মাদকাসক্তের অভিযোগও। যদিও মানিক-আতিক-রুবেলদের অপকর্মে নিজে সরাসরি জড়িত নন রাজীব। তবে মানিক-আতিক-রুবেলদের মদদদাতা হিসেবে রাজীবের নাম সবারই জানা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় কয়েকজন নেতা বলেন, মূলত গোটা সাভার নিয়ন্ত্রণ করেন রাজীব ও তার ভাই সমর। এই দুই ভাইয়ের সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে কেউ কোন কথা বলতে সাহস পান না। তাদের চাঁদাবাজি-দখলবাজি-স্বেচ্ছাচারীতার প্রতিবাদ করায় অনেকেই হামলার শিকার হয়েছেন। কেউ আবার ছেড়েছেন এলাকা। আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে রাজীবদের পরিবারের ত্যাগের গল্প সবার জানা থাকলেও, সন্ত্রাসী বাহিনী ও অস্ত্রের ঝনঝনানিতে রাজীব এখনও সাভারবাসীর কাছে ত্রাস হিসেবেই পরিচিত।

এর মাঝেও ভিন্নতা রয়েছে। আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জাতীয় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার জন্য গত ৮ নভেম্বর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকে অব্যাহতি নিয়েছেন। নিজ এলাকায় তৃণমূল আওয়ামী লীগে বেশ জনপ্রীয় এই মনোনয়ন প্রত্যাশী। তাছাড়া ঢাকা-১৯ আসনে সিংহভাগ ভোট শিল্পাঞ্চল আশুলিয়ায়। তাই ভোটের লড়াইয়ে অনেকটাই এগিয়ে তিনি।

তৃণমূল আওয়ামী লীগের সঙ্গে দূরত্ব থাকলেও মনোনয়নে এগিয়ে আছেন দুই দুই বারের নৌকার মনোনীত এমপি ডা. এনামুর রহমান। তিনি নৌকা প্রতীকে আবারও মনোনীত হবেন বলে দীর্ঘ দিন আগে থেকেই নৌকায় ভোট প্রার্থণা করেছেন। রানা প্লাজার ঘটনার পরই কপাল খুলে ডা. এনামের। পরিচিতি পান বিশ্ব দরবারে। সুযোগ বুঝে আওয়ামী লীগ তাকে টেনে নেয় দলে। দ্বিতীয় দফায় দেয়া হয় প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা। ক্লিন ইমেজের এই সংসদ সদস্য তাই এবারও আওয়ামী লীগের মনোনয়নের দৌড়ে রয়েছেন সবার ওপরে।

গত ১৫ নভেম্বর তফশিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন। দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের দিন ঠিক করা হয়েছে আগামী ৭ জানুয়ারি। ইতোমধ্যে মনোনয়ন সংগ্রহ শুরু হয়েছে। মনোনয়ন জমা দেওয়ার শেষ দিন ৩০ নভেম্বর।

নামাজের সময় সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৬ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৩ অপরাহ্ণ
  • ৪:৪০ অপরাহ্ণ
  • ৬:৫২ অপরাহ্ণ
  • ৮:১৮ অপরাহ্ণ
  • ৫:১১ পূর্বাহ্ণ