জয়পুরহাটে ঐতিহ্যবাহী পাতা খেলা দেখতে হাজারো মানুষের ভীড়


প্রকাশের সময় : ফেব্রুয়ারী ১৪, ২০২৪, ১:৫৩ অপরাহ্ন / ৩৬৫
জয়পুরহাটে ঐতিহ্যবাহী পাতা খেলা দেখতে হাজারো মানুষের ভীড়

মোঃ নেওয়াজ মোর্শেদ নোমান, জয়পুরহাটঃ আধুনিকতার ছোঁয়ায় হারিয়ে যেতে বসেছে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী প্রাচীন খেলাগুলো। এ খেলাগুলো এখন নবীনদের কাছে প্রায় অচেনা। প্রাচীন খেলাগুলোর মধ্যে অন্যতম খেলা হচ্ছে তন্ত্রমন্ত্রের পাতা খেলা। এই খেলার ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে জয়পুরহাট সদর উপজেলার রহমতপুর এলাকায় এ খেলার আয়োজন করেন স্থানীয় কয়েকজন যুবক। বিলুপ্তপ্রায় এমন খেলা দেখতে ভীড় করেন বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা হাজারো মানুষ।

সরেজমিনে দেখা যায়, জয়পুরহাটের বিভিন্ন এলাকা থেকে ৮ থেকে ১০ তান্ত্রিক দল এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেন। শুরুতে মাঠের মধ্যে লাগানো হয় কলা গাছ। মধ্য মাঠের খেলোয়ার তুলা রাশির জাতক বলেই তাদের হাতে মন্ত্র পড়ে ফোঁক দেন এক তান্ত্রিক গুরু। আর দর্শক সারিতে বসে থাকা তান্ত্রিকগন বসে বা দাঁড়িয়ে মন্ত্র পাঠে বশ করাবেন মধ্য মাঠের পাতা খেলোয়ারদের। প্রতিযোগিতা চলে কয়েকজন মানুষকে মাঠের মাঝখান থেকে নিজের দিকে টানার।

এ জন্য তান্ত্রিকরা হাড়, লাঠি, জবা ফুল, মন্ত্র পড়া লোটা ভর্তি পানি, ধুলা, আগরবাতিসহ বিভিন্ন প্রকার গাছের শিকড় বাকড় ব্যবহার করেন। যে দল তাদের মন্ত্রের মাধ্যমে বেশি পাতাকে বশ করতে পারবে সেই দলই বিজয়ী হবে।

ঐতিহ্যবাহী খেলাগুলোর মধ্যে মন্ত্র পাঠের এই খেলার কথা শোনা মাত্র শিশু-কিশোর, যুবক-যুবতীসহ নানা বয়সী দর্শকদের সমাগম ঘটে পাতা খেলার মাঠে।

সুলতান মাহমুদ নামে এক দর্শক বলেন, এই পাতার খেলার নাম আগে বেশ কয়েকবার শুনেছি। কিন্তু কখনো দেখা হয়নি। এবার আমাদের এলাকায় এই খেলার আয়োজন করা হয়েছে শুনে দেখতে এসেছি।

আফজাল হোসেন বলেন, আমাদের বাপ-দাদার আমলে এই পাতা খেলা অনেকটা দেখা যেতো। তবে কালের বিবর্তনে এই খেলা এখন তেমন একটা দেখা যায়না। আজকে অনেকদিন
আবারও পাতা খেলা দেখতে পেয়ে খুব ভাল লাগছে।

আয়োজক কমিটির সদস্য তানভীর ইসলাম বলেন, হাড়িয়ে যাওয়া খেলাটি নতুন প্রজন্মের কাছে তুলে ধরতেই এই আয়োজন করা হয়েছে। খেলাটি উপভোগ করতে বিভিন্ন এলাকা থেকে হাজার হাজার মানুষ এসেছে। আগামীতেও ঐতিহ্যবাহী এমন খেলা ধরে রাখার চেষ্টা করব।

নামাজের সময় সূচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৪৬ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৩ অপরাহ্ণ
  • ৪:৪০ অপরাহ্ণ
  • ৬:৫২ অপরাহ্ণ
  • ৮:১৮ অপরাহ্ণ
  • ৫:১১ পূর্বাহ্ণ